আমরা সবাই দৈনন্দিন জীবনে কম্পিউটার ব্যবহার করে থাকি। কম্পিউটারের মাধ্যমে এমন কোনো কাজ নেই যা করা যায় না। ছোটবেলায় আমরা সবাই শিখেছি কম্পিউটারের অংশ হলো তিনটি, যার মধ্যে প্রধান ও সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশটি হলো ‘সিপিইউ’ বা ‘সেন্ট্রাল প্রসেসিং ইউনিট’। এই সিপিইউ এর মাধ্যমে কম্পিউটারের সকল কাজ সম্পন্ন হয়ে থাকে।

মাদারবোর্ড, গ্রাফিক্স সব এই সিপিইউ এরই অংশ। কিন্তু একটি সাধারণ কম্পিউটারের যে বিল্ট-ইন গ্রাফিক্স ক্ষমতা থাকে, তা দিয়ে অনেক কাজই সুচারুভাবে করা যায় না। উচ্চ গ্রাফিক্স সম্পন্ন গেম খেলা, গ্রাফিক্সের কাজ করা, ফটো এডিটিং অথবা ইলাস্ট্রেশনের কাজ করা ইত্যাদি করতে উঁচু মাত্রার গ্রাফিক্সের কম্পিউটার প্রয়োজন হয়। আর এজন্য কম্পিউটারে লাগানো হয় অতিরিক্ত উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন গ্রাফিক্স কার্ড।

আর এই গ্রাফিক্স কার্ডের সকল কাজ যে ইউনিটের মাধ্যমে সম্পন্ন হয়, তা-ই হলো জিপিইউ বা ‘গ্রাফিক্স প্রসেসিং ইউনিট’। গ্রাফিক্স সম্পর্কিত যত কাজ আছে সবকিছু সম্পন্ন হয় জিপিইউ এর মাধ্যমে। কাজেই কম্পিউটার ব্যবহারের ক্ষেত্রে জিপিইউ এর ভূমিকা অপরিসীম। বর্তমানে বাজারে নানা ধরনের জিপিইউ পাওয়া যাচ্ছে। বাংলাদেশে সাধ্যের মধ্যে গ্রহণযোগ্য দামে পাওয়া যাচ্ছে এমন ৫ টি জিপিইউ নিয়ে এই আর্টিকেল টি সাজানো হয়েছে।

১. এনভিডিয়া জিফোর্স আরটিএক্স ২০৬০(Nvidea GeForce RTX 2060):

বর্তমান প্রজন্মের একটি অন্যতম জিপিইউ হল এনভিডিয়া এর জিফোর্স আরটিএক্স ২০৬০। এতে ব্যাবহার করা হয়েছে এনভিডিয়া এর টিউরিং আর্কিটেকচার, যা এর কর্মক্ষমতাকে পূর্বের প্রজন্মের তুলনায় ৬ গুন বৃদ্ধি করতে সক্ষম। এতে ডিডিআর৬(DDR6) টাইপ ভি-র‍্যাম ব্যবহার করা হচ্ছে যা উৎপাদনকারী ও সংস্করণ  ভেদে ৬ থেকে ৮ জিবি পর্যন্ত হতে পারে ।

এটি ডিরেক্টএক্স ১২ সাপোর্ট করে। এটির মেমোরি বাস ১৯২/২৫৬ বিট ও মেমোরি ক্লক স্পীড ১৪ জিবিপিএস। এর সর্বোচ্চ রেজোলুশন ৭৬৮০x৪৩২০ । এটি অত্যন্ত শক্তিশালি একটি জিপিইউ।  বর্তমান সময়ের মধ্যে রিলিজ হওয়া সকল ভিডিও গেম আল্ট্রা সেটিংসে ৪কে রেজ্যুলেশনে খেলা যাবে।

বাজারে MSI, Asus, Zotac, Gigabyte ইত্যাদি প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানের রেগুলার, ওসি, অ্যাম্প, সুপার বিভিন্ন এডিশন পাওয়া যায়। এর দাম পড়বে প্রায় ৩৩,৫০০ থেকে ৫০,০০০ টাকার মধ্যে।

এনভিডিয়া জিফোর্স আরটিএক্স ২০৬০; ছবি: nvidia.com

 ২. এএমডি র‍্যাডিয়ন আরএক্স ৫৭০০ (Amd Radeon RX 5700):

এতে ব্যবহৃত আরডিএনএ আর্কিটেকচার  আগের সংস্করণগুলোর জিসিএ আর্কিটেকচার  থেকে আরও উন্নত গেমিং এক্সপেরিয়েন্স প্রদান করতে সক্ষম। এটি পিসিআই এক্সপ্রেস ৪.০ সাপোর্ট করে।  এতে ব্যবহৃত ভির‍্যাম ডিডিআর-৬ প্রজন্মের। এতে ৮ জিবি ভির‍্যাম থাকে যার মেমোরি ক্লক স্পীড ১৪ জিবিপিএস এবং মেমোরি বাস ২৫৬ বিট।

এটিও ডিরেক্ট এক্স ১২ পর্যন্ত সাপোর্ট করে। এর সর্বোচ্চ ডিজিটাল রেজোল্যুশন ৫১২০x২৮৮০ । এর দাম পড়বে প্রায় ৩৪,৫০০ থেকে ৪৩,০০০ টাকার মধ্যে।

এএমডি র‍্যাডিয়ন আরএক্স ৫৭০০; ছবি: amazon.com

৩. এনভিডিয়া জিফোর্স জিটিএক্স ১৬৬০ টি (Nvidea GeForce GTX 1660 Ti):

এটি জিটিএক্স ১০৬০ জিপিইউ এর উত্তরসূরী। এতে ব্যবহার করা হয়েছে এনভিডিয়া এর টিউরিং আর্কিটেকচার যেখানে ১০৬০-এ ব্যবহার হয়েছে প্যাসকেল আর্কিটেকচার। টিউরিং হলো এক ধরনের বহু কর্মক্ষমতা সংবলিত জিপিইউ আর্কিটেকচার যা একইসাথে ‘পিক্সেল প্রসেসিং, কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা এবং ‘রিয়েল টাইম রে ট্রেসিং’ এই তিনটি কাজই সম্পন্ন করতে পারে।

এটি ডিডিআর৬ ভি-র‍্যাম সম্পন্ন। এতে ভি-র‍্যাম থাকে ৬ জিবি। এটি পিসি আই এক্সপ্রেস ৩.০ সাপোর্ট করে। মেমোরি ক্লক ১২ জিবিপিএস ও মেমোরি বাস ১৯২ বিট। ডিজিটাল ম্যাক্সিমাম রেজ্যুলেশন ৭৬৮০x৪৩২০।

জিটিএক্স ১৬৬০ এবং জিটিএক্স ১৬৬০ টি এর মূল পার্থক্য হলো জিটিএক্স ১৬৬০ থেকে জিটিএক্স ১৬৬০ টি তে সিইউডিএ কোর এর সংখ্যা বেশি, যার কারনে “জিটিএক্স ১৬৬০টি জিপিইউ” টি ‘জিটিএক্স ১৬৬০’ থেকে অধিকতর ভালো গ্রাফিক্স ক্যাল্কুলেশন করতে সক্ষম । তাছাড়াও জিটিএক্স ১৬৬০ এর মেমোরি ব্যান্ডউইথ ও বেশি। এর দাম পড়বে প্রায় ২৬,৮০০-৩১,৩০০ টাকা।

এনভিডিয়া জিফোর্স জিটিএক্স ১৬৬০ টি; ছবি: caseking.de


এএমডি র‍্যাডিওন আরএক্স ৫৯০(AMD Radeon RX 590):

এএমডি আরএক্স ৫৯০ এর উদ্দেশ্য  ছিল আরএক্স ৫৮০ এবং আরএক্স ভেগা ৫৬ এর মধ্যে শূন্যস্থান পূরণ করা, যা সেই সময় এনভিডিয়া এর জিফোর্স জিটিএক্স ১০৬০ এর দখলে ছিল। এর মেমোরি টইপ ডিডিআর৫, যা পূর্বে বর্ণিত ২ টি জিপিইউ এর পূর্ববর্তী প্রজন্ম । 

এতে ব্যবহৃত হয়েছে জিসিএন পোলারিস আর্কিটেকচার যা আরডিএনএ প্রযুক্তি এর পূর্বসূরি। এটি পিসিআই এক্সপ্রেস ৩.০ সাপোর্ট করে। এর মেমোরি ক্লক ৮০০০ মেগাহার্টজ ও ভি-র‍্যাম ৮ জিবি হয়ে থাকে যা স্মুথ টেক্সচার এর জন্যে যথেষ্ট।

মেমোরি বাস ২৫৬ বিট এবং এর মাক্সিমাম ডিজিটাল রেজ্যুলেশন ৫১২৯x২৮৮০, তবে ASUS আরওজি ভার্সন টি ৭৬৮০ X ৪৩২০ পর্যন্ত দিতে পারে। বিভিন্ন ভার্সন ভেদে এর মূল্য পড়তে পারে ২২,৫০০ থেকে ৩২,০০০ টাকার মতো।

এএমডি র‍্যাডিওন আরএক্স ৫৯০; ছবি: amd.com


এএমডি র‍্যাডিওন আরএক্স ৫৮০(AMD Radeon RX 580):

বর্তমান বাজারের একটি অন্যতম বাজেট কার্ড হল আরএক্স ৫৮০ ৪ জিবি ডিডিআর৮ ভার্সনটি। এটিতেও আরএক্স ৫৯০ এর মতো জিসিএন পোলারিস ব্যবহৃত হয়েছে। এটিও আরএক্স ৫৯০ এর মতো পিসিআই এক্সপ্রেস ৩.০ এবং এটি ডিরেক্টএক্স ১২ সাপোর্ট করে।

মেমোরি বাস ২৫৬ বিট এবং ডিজিটাল ম্যাক্সিমাম রেজ্যুলেশন ৩৮৪০ X ২১৬০। তবে আসুস আরওজি ভার্সনটি ৭৬৮০ X ৪৩২০ রেজ্যুলেশন পর্যন্ত দিতে পারে। বিভিন্ন ভার্সন ভেদে এর দাম পড়বে প্রায় ১৮,৫০০-২৬০০০ টাকা। এই জিপিইউ টি কম বাজেটের মধ্যে জিটিএক্স ১৬৬০ থেকে ভালো এফপিএস প্রদান করতে সক্ষম।

এএমডি র‍্যাডিওন আরএক্স ৫৮০; ছবি: bestbuy.com

উপরে আলোচিত জিপিইউগুলো ছাড়াও বাজারে আরো বেশ ভালো মানের জিপিইউ রয়েছে। কিন্তু কিছু রয়েছে যেগুলোর দাম অনেক বেশি এবং অধিকাংশ মানুষের নাগালের বাইরে চলে যায়। সবার সাধ্যের মধ্যে সর্বনিম্ন মূল্যে সর্বোন্নত মানের গ্রাফিক্স দিতে পারবে, এরকম কিছু জিপিইউ নিয়েই তালিকাটি তৈরি করা হয়েছে। সহজে ব্যবহারযোগ্য এই জিপিইউগুলো দিয়ে কম্পিউটারের নানা গ্রাফিক্সের কাজ যথাযথভাবে করার পাশাপাশি অনায়াসে খেলা যাবে উন্নত গ্রাফিক্সের ভিডিও গেম।

ফিচার ছবি- towardsdatascience.com

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *