ভিডিও গেমস অনেকের কাছে নিছক কালক্ষেপণের জন্য বিনোদন, আবার অনেকের নিকট অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কিছু। দিনরাত কম্পিউটার কিংবা এক্সবক্স আর প্লেস্টেশনের পর্দার সামনে সুস্থির হয়ে বসে থাকা গেমারদের জন্য গেমিংই সব। সেক্ষেত্রে, সাধারণ কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের মতো সাধারণ ডিভাইসে গেম খেলতে তারা পছন্দ করেন না।

সত্যিকারের গেমাররা হয় এক্সবক্স বা প্লেস্টেশনের মতো সর্বোচ্চ পর্যায়ের গেমিং ডিভাইস ব্যবহার করেন, অথবা নিজেদের কম্পিউটারেই গ্রাফিক্স কার্ড, এসএসডি, অপটেন মেমোরিসহ আরো নানাবিধ অত্যাধুনিক ডিভাইস সংযুক্ত করে উন্নত গ্রাফিক্সের গেমগুলো খেলেন। তবে, উচ্চমানের গ্রাফিক্স সম্বলিত গেমগুলো খেলার জন্য একটি জুতসই কম্পিউটার থাকা সত্ত্বেও অনেকসময় গেম খেলে পূর্ণ সন্তুষ্টি আসে না। আর তার কারণ গেমিং কন্ট্রোলার।

যত উন্নত গ্রাফিক্স আর প্রসেসর সম্বলিত কম্পিউটারই হোক না কেন, একটি উৎকৃষ্টমানের কন্ট্রোলার ছাড়া গেমের মজা পাওয়া যায় না। বাজারে বিদ্যমান হরেক রকম কন্ট্রোরাল থেকে বাছাই করতে গিয়ে গলদঘর্ম না হয়ে সহজ উপায় এক্সবক্স কন্ট্রোলার কেনা।

মাইক্রোসফটের গেমিং ডিভাইস এক্সবক্স ওয়ান যেমন বিশ্ব মাতিয়ে রেখেছে, এর আকর্ষণীয় এবং অত্যাধুনিক কন্ট্রোলারগুলোও সকলের পছন্দের তালিকার শীর্ষে রয়েছে। তার উপর, কাস্টমাইজেশন নিয়েও কোনো চিন্তা নেই। ফার্স্ট পারসন শ্যুটিং গেম, রেসিং গেম, স্পোর্টস গেম কিংবা ওপেন ওয়ার্ল্ড গেম, যেকোনো ধরনের গেমের জন্য আলাদা আলাদা কাস্টমাইজেশন নিয়ে আলাদা আলাদা কন্ট্রোলার তৈরি করেছে এক্সবক্স।

তাই আর দেরী কেন? এক্সবক্সে গেম খেলার স্বাদ কিছুটা হলেও পেতে আজই কিনে ফেলুন একটি এক্সবক্স গেমিং কন্ট্রোলার। কেনার আগে দেখে নিন এসব কন্ট্রোলারের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি।

এক্সবক্স ওয়ান ওয়্যারলেস কন্ট্রোলার

এটিকে এক্সবক্স কন্ট্রোলারের মানদণ্ড বলা চলে। বাজার থেকে একটি এক্সবক্স কিনে আনলে এই কন্ট্রোলারটিই সাথে পাবেন। তারবিহীন এই কন্ট্রোলারটি আগের এক্সবক্স-৩৬০ এর কন্ট্রোলারটির মতই, শুয়ে, বসে, হেলান দিয়ে, নিজের ইচ্ছা স্বাধীন অবস্থানে থেকে এই কন্ট্রোলার ব্যবহার করতে পারবেন।

Image Source: powera.com

এর অফসেট এনালগ স্টিকগুলো যেকোনো ধরনের গেমের জন্য মানানসই এবং আরামদায়ক। এছাড়া, আগের সংস্করণগুলোর তুলনায় এর ডাবল-এ ব্যাটারি অধিক কর্মক্ষম, একচার্জে সার্ভিস দিতে পারে প্রায় ১ সপ্তাহ। যদি কোনো কারণে আপনার কম্পিউটারে ওয়্যারলেস ডিভাইস না থাকে, তাতেও সমস্যা নেই। এক্সবক্স ওয়ানের এই কন্ট্রোলারে ইউএসবি পোর্টও রয়েছে।

দেখতে সাদামাটা হলেও দুর্দান্ত গেমিং এক্সপেরিয়েন্স দিতে সক্ষম এই কন্ট্রোলারটির দাম বাংলাদেশি টাকায় ৫ হাজার টাকার মতো।

এক্সবক্স ডিজাইন ল্যাব কন্ট্রোলার

এক্সবক্স ওয়ান কন্ট্রোলারের সাদাকালো দুনিয়ায় বিরক্তি ধরে এলে ঘুরে আসতে পারেন এক্সবক্স ডিজাইন ল্যাবের রঙিন দুনিয়া থেকে। চমৎকার এই কন্ট্রোলারটি এতটাই গেমার বান্ধব যে এটি আগাগোড়া কাস্টমাইজ করা যায়। এর ট্রিগার থেকে শুরু করে অ্যানালগ স্টিক, ফ্রন্ট, ব্যাক, সবকিছুই কাস্টমাইজ করে নিজের মতো রং করতে পারা যায়।

Image Source: windowsreport.com

ব্যাটারি সক্ষমতা এবং কর্মক্ষমতা, সবকিছুই মোটামুটি এক্সবক্স ওয়ানের স্ট্যান্ডার্ড কন্ট্রোলারটির মতো। তথাপি, এই কন্ট্রোলারের বিশেষত্ব এর কাস্টমাইজেশনে।

বাংলাদেশে এক্সবক্স ডিজাইন ল্যাবের দাম পড়বে ৫,৫০০ টাকা বা ততোধিক।

এক্সবক্স ওয়ান এলিট কন্ট্রোলার

যারা সাধারণত বিনোদনের জন্য গেম খেলে থাকেন, তাদেরকে কন্ট্রোলারের কর্মক্ষমতা নিয়ে মাথা ঘামাতে হয় না। কিন্তু, গেমিং যখন হবে প্রতিযোগিতামূলক, যখন আপনি অনলাইনে মাল্টিপ্লেয়ারে বন্ধুদের সাথে প্রতিযোগিতা করবেন, তখন প্রত্যেক ন্যানোসেকেন্ডও মূল্যবান। প্রতিযোগিতামূলক খেলায় আপনার কন্ট্রোলারটি যত দ্রুতগতির হবে, আপনি তত এগিয়ে যাবেন। আর এই এগিয়ে যাওয়ার সেরা সঙ্গী হতে পারে এক্সবক্স এলিট কন্ট্রোলার

Image Source: amazon.com

প্রতিযোগিতামূলক গেমারদের জন্য সর্বোচ্চ কর্মক্ষমতা নিয়ে বাজারে উপস্থিত এই অনন্য ডিভাইসটি। এটি দেখতে এক্সবক্স ওয়ান ওয়্যারলেস কন্ট্রোলারের মসৃণতর সংস্করণ মনে হলেও এর ধাতব অ্যানালগ স্টিক, অধিক রেঞ্জ এবং ভিন্ন ভিন্ন আকৃতি নিয়ে ৪টি অতিরিক্ত স্টিক একে নিয়ে গেছে অন্য মাত্রায়।

আর এর কাস্টমাইজেশনের বিকল্পের তো শেষই নেই। এর ট্রিগারের সেনসিটিভিটি এবং দূরত্ব ইচ্ছেমতো বদল করা যাবে, ডিরেকশনাল প্যাডটির দিক পরিবর্তন করা যাবে কিংবা একেবারে খুলে রাখাও যাবে, পেছনের প্যাডেলগুলোর কাজ বদলে দেয়া যাবে, এক কথায় একে ‘যেমন খুশি তেমন’ করে কাস্টমাইজ করে যাবে।

বাজেটের ঘাটতি না থাকলে আজই কিনে ফেলুন এই কন্ট্রোলারটি। বাংলাদেশে এর দাম ১৬ হাজার থেকে শুরু করে ২৫ হাজার পর্যন্ত।

এক্সবক্স অ্যাডাপ্টিভ কন্ট্রোলার

মাইক্রোসফট তাদের গেমিং কন্ট্রোলারগুলো কেবল সুস্থ স্বাভাবিক গেমারদের জন্যই তৈরি করে না। তারা শারীরিকভাবে বিকলাঙ্গ কিংবা প্রতিবন্ধীদের কথাও মাথায় রাখে। এক্সবক্স অ্যাডাপ্টিভ কন্ট্রোলার হলো এমন একটি ডিভাইস যা কোনো বিকলাঙ্গ ব্যক্তিও নিজের সুবিধামতো কাস্টমাইজ করে নিতে পারবেন।

Image Source: gathering.tweakers.net

কেবল রং নয়, অ্যাডাপ্টিভ কন্ট্রোলারের সবকিছুই পরিবর্তন করা যাবে। সাধারণ এক্সবক্স কন্ট্রোলারের প্রতিটি বাটনের বিপরীতে এক্সবক্স অ্যাডাপ্টিভ কন্ট্রোলারে রয়েছে একটি করে ইনপুট পোর্ট। এসব পোর্টে ব্যবহারকারী নিজের ইচ্ছামতো ৩.৫ মিলিমিটার বা ইউএসবি ব্যবহার করে নিজের সুবিধামতো ব্যবহারবিধি ঠিক করতে পারবেন।

অ্যাডাপ্টিভ কন্ট্রোলারের আরো একটি চমৎকার দিক হলো ইউজার প্রোফাইল সৃষ্টির সুযোগ। যদি একই কন্ট্রোলার একাধিক ব্যক্তি ব্যবহার করতে চান এবং প্রত্যেকের জন্য আলাদা কাস্টমাইজেশন প্রয়োজন হয়, তাহলে প্রত্যেক ব্যবহারকারী একটি করে ইউজার প্রোফাইল তৈরি করে নিজের কাস্টমাইজেশন সংরক্ষণ করে রাখতে পারেন।

বাংলাদেশে এই কন্ট্রোলারের দাম পড়বে ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা। মাইক্রোসফটের তৈরি এই কন্ট্রোলারগুলো ছাড়াও এক্সবক্সের আরো কিছু সুদৃশ্য কন্ট্রোলার রয়েছে যেগুলো থার্ড পার্টি থেকে তৈরি। রেজারের উলভারিন আল্টিমেট কিংবা হরির ফাইটিং কমান্ডার- এক্সবক্সের থার্ড পার্টি কন্ট্রোলারগুলোর মাঝে এদুটো সেরা।

ফিচার ছবি: polygon.com

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *